শিরোনামঃ

বীর মুক্তিযুদ্ধা মরহুম আব্দুল ওয়াহেদ সম্পর্কে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা বলায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়-দেশবাংলা খবর২৪

বীর মুক্তিযুদ্ধা মরহুম আব্দুল ওয়াহেদ সম্পর্কে  ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা বলায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়-দেশবাংলা খবর২৪


 


শেখ শুভ  মোহনগঞ্জ (নেএকোনা)প্রতিনিধি


মোহনগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদ ইকবালের বাবা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল . ওয়াহেদকে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা বলে কটাক্ষ করার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলা।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি মোহনগঞ্জ এক সভায় ৪নং মাঘান শিয়াধার ইউপির চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিক মোহনগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদ ইকবালের বাবা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াহেদকে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে উল্লেখ করে কটাক্ষ করার অভিযোগ উঠে।বিক্ষুব্ধ মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা সোমবার সকাল থেকে বিভিন্ন ইউনিয়ন হতে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে মোহনগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যায় মাঠে জড়ো হতে থাকে। এ সময় মাঘান শিয়াধার ইউপির চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিকের কুশ পুত্তলিকা পুড়ায় বিক্ষোভকারীরা।

পরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও নাগরিক সমাজের ব্যানারে কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বসুন্ধরা মোড় থেকে মিছিল বের করে উপজেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে স্থানীয় আলী উছমান শিশু পার্কে গিয়ে মিলিত হয়। রে সেখানে সমাবেশ করে প্রতিবাদকারীরা।বীর মুক্তিযোদ্ধা মো.শামছুল আলম তালুকদারের সভাপতিত্বে ও এস এম এইচ মিলকীর পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মো. ওয়াহিদ আহম্মেদ, সিদ্দিকুর রহমান, আ. আজিজ, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদ ইকবাল, জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান আবদুল হান্নান রতন, উপজেলা আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শামছুর রহমান মাস্টার প্রমুখ।বক্তারা বলেন, অবিলম্বে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওয়াহেদকে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা উল্লেখকারী ইউপির চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিককে বিচারের আওতায় আনতে হবে। 

তিনি এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে তারা বলেন, ওই আবু বক্কর চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাকে অপমান করেছেন।মুক্তিযুদ্ধ এবং কোন মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে ভবিষ্যতে কেউ কোন প্রকার বাজে মন্তব্য করলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না। পাশাপশি এ বিষয়ে ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা না নিলে কঠোর আন্দোলেনর হুশিয়ারী দেন তারা।মিছিলে বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আওয়ামী লীগ, যুব লীগ, ছাত্রলীগসহ এলাকার হাজার সাধারণ মানুষ অংশ নেন।

No comments

-->