শিরোনামঃ

বঙ্গবন্ধুর ভাষণ: শাশ্বত বাঙালির লড়াইয়ের শক্তি-দেশবাংলা খবর২৪



অনলাইন ডেক্সঃ

জগতের কিছু সৃষ্টি আজও শাশ্বত হয়ে আছে, থাকবে অনন্তকাল। নদী যেমন অনন্তকাল বহমান, পাহাড়ি ঝর্ণা যেমন প্রতি মুহূর্ত প্রবাহিত, হিমালয় পর্বত যেমন কালের রেখায় দণ্ডায়মান; এমনি অনেককিছুই পৃথিবীতে অবিনশ্বর হয়ে আছে। এগুলো সবই প্রকৃতির সৃষ্টি। তবে মানুষেরও কিছু সৃষ্টি প্রকৃতির মতোই পৃথিবীতে যুগ যুগান্তরে সাক্ষ্য বহন করে চলেছে। যার আবেদন কোনোদিন শেষ হয় না। কিছু কবিতা, কিছু গান চিরকালই আধুনিক। সব কালের, সব সময়ের সাথে ছবির মতো মিশে থাকে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে শতাব্দির শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রকৃতির মতোই আমাদের ইতিহাস আর ঐতিহ্যের সাথে বহমান। তাঁর সৃষ্টির ছোঁয়ায় আমরা একটি মানচিত্র পেয়েছি, পেয়েছি স্বাধীন একটি দেশ। যার নাম বাংলাদেশ। আশ্চর্যের বিষয় এই স্বাধীন বাংলাদেশের উৎপত্তি একটি মুখের বিপ্লবী কণ্ঠস্বর থেকে। দিনটি ছিল ৭ মার্চ ১৯৭১ সাল। ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে লাখো লাখো জনতার সামনে দাঁড়িয়ে সেদিন একটি মানুষের মুখ থেকে উচ্চারিত কিছু শব্দাবলী বিচ্ছুরিত হয়ে একটি দেশের জন্ম হয়েছিল; যে দেশটির নাম বাংলাদেশ। যে দেশটি এখন পৃথিবীর বুকে সগৌরবে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে।

যে দেশটি এখন অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ একটি দেশ। অথচ এই দেশটির জন্ম হয়েছিল উর্বর পলিতে তলিয়ে যাওয়া রক্ত নদীর প্রবাহ থেকে। বোমার আঘাতে ঝলসে যাওয়া আগুনের কুন্ডলি থেকে। এত এত রক্ত, এত এত মানুষের আত্মবলিদানে অর্জিত যে স্বাধীন বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা আজ বাংলাদেশের সীমানা পেরিয়ে সমগ্র পৃথিবী জুড়ে আমরা উড়তে দেখি; সেই পতাকার মর্মর ধ্বনিতে আজও বেজে ওঠে বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ।

No comments

-->