শিরোনামঃ

টান টান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে লালমনিরহাট পৌরসভার ভোট গ্রহণ শেষ

 টান টান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে লালমনিরহাট পৌরসভার ভোট গ্রহণ শেষ


রাসেল ইসলাম, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ 

লালমনিরহাট পৌরসভা নির্বাচনে টানটান উত্তেজনার মধ্য দিয়েই শেষ হলো ভোট গ্রহণ। কয়েক জায়গায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। 

রোববার (১৪ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮ টা থেকে শুরু হয়ে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে ভোট গ্রহণ চলতে থাকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

সকাল ১০টার দিকে ভোট গ্রহণ চলাকালীন সময় কয়েকটি কেন্দ্রে বিক্ষিপ্ত ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মোশারফ হোসেনের রানার পাঁচ জন সমর্থক আহত হন। এদিকে কেন্দ্রের ভিতরে ঢুকে ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডারদের বিরুদ্ধে ইভিএমের চিপ খুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ রয়েছে বিদ্রোহী প্রার্থীর। এসময়  ছয় জন আহত হয়েছেন।

রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পৌরসভার চারটি কেন্দ্রে এ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় আহত হন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক কোষাধ্যাক্ষ হাবিবুর রহমান হাবিব, সুফি তাহেরুল ইসলাম, আব্দুল জলিলসহ মোট ছয় জন। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, লালমনিরহাট পৌরসভার ভোট গ্রহণ শুরু হলে বিক্ষিপ্তভাবে চারটি কেন্দ্রে প্রার্থী'র সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দক্ষিণ বত্রিশ হাজারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গিয়াস উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, রেলওয়ে চিল্ড্রেন পার্ক শিশু স্কুল, সাপ্টানা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। আহতরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

অপরিদকে বিএনপি'র মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোশারফ হোসেন রানা ও জাতীয় পাটির মনোনীত প্রার্থী এস এম ওয়াহিদুল হাসান সেনা অভিযোগ করে বলেন, ক্ষমতাসীন দলের লোকজন বিএনপি'র ও জাতীয় পাটির এজেন্টদেরকে ভোট কেন্দ্র থেকে বের করে দিচ্ছে।


এদিকে রেলওয়ে চিলড্রেন স্কুলে ভোট গ্রহণে অনিয়মের অভিযোগ এনে আশরাফুল-সহ আরো অনেক ভোটার বলেন, কেন্দ্রের ভেতরে জোর করে একজন তার ভোটটি একটি বিশেষ প্রতীকে দিয়ে দিয়েছেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউল করিম স্বপন অভিযোগ করে বলেন, সরকারী দলের প্রার্থীর পক্ষে আওয়ামী লীগের লোকজন জোর করে ভোট দিচ্ছেন। আমার প্রতীকের লোকজনকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, পৌরসভার ভোট গ্রহন ১৮টি কেন্দ্রে হচ্ছে। এসব কেন্দ্রের বেশিরভাগে স্বতন্ত্র প্রার্থী নারিকেল গাছ মার্কার এজেন্ট ও সমর্থকদের কাছাতে দিচ্ছে না সরকার দলীয় ক্যাডাররা। এ বিষয়ে প্রশাসনকে বার বার অভিযোগ করা হলেও তারা নীরবতাই পালন করছেন। 

ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে

লালমনিরহাট সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম জানান, বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটলেও তাৎক্ষণিকভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। তবে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট সম্পন্ন হয়েছ বলেও জানান তিনি।

No comments

-->