শিরোনামঃ

টিকা নিতে আগ্রহ বাড়ছে।

টিকা নিতে আগ্রহ বাড়ছে।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রাজধানীর উত্তর শাহজাহানপুরের বাসিন্দা নুরুল হক পাটোয়ারীর বয়স এখন ৯৩ বছর। কোনো ব্যক্তির সাহায্য ছাড়া তিনি হাঁটাচলা করতে পারেন না। তার স্ত্রী রোকেয়া বেগমের বয়স ৭৫ বছর। তাদের মেজো ছেলে মোহতাসিম বেলাল গতকাল সোমবার সকালে তাদের নিয়ে মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের টিকাদান কেন্দ্রে আসেন। টিকা নিয়ে প্রবীণ দম্পতি বেশ খুশি। বললেন, তাদের ভালো লাগছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে টিকা নিয়েছেন স্বাধীনতা পদক পাওয়া প্রখ্যাত চিকিৎসক ৮৪ বছর বয়সী অধ্যাপক ডা. এএইচএম তৌহিদুল আনোয়ার চৌধুরী। ডা. টি এ চৌধুরী নামে তিনি বেশি পরিচিত। টিকা নেওয়ার পর তিনি বলেন, টিকা নিতে বয়স কোনো বিষয় নয়। বয়স কিংবা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার চিন্তা না করে সবার টিকা নেওয়া উচিত। টিকা ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়- এটি প্রমাণিত।

গতকাল করোনাভাইরাসের টিকাদানের দ্বিতীয় দিনে সকাল ৮টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত সারাদেশে কেন্দ্রগুলোতে ছিল প্রবীণদের উল্লেখযোগ্য উপস্থিতি। সম্মুখযোদ্ধা, ৫৫ বছরের বেশি বয়সীসহ ১৫ শ্রেণিপেশার মানুষ প্রথম ধাপে টিকা পাচ্ছেন। রাজধানীর পাঁচটি হাসপাতালের টিকাকেন্দ্র ঘুরে মানুষের মধ্যে বেশ উদ্দীপনা দেখা গেছে। করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। প্রথম দিনের চেয়ে দ্বিতীয় দিনে ১৫ হাজারের বেশি মানুষ টিকা নিয়েছেন। গতকাল সোমবার ৪৬ হাজার ৫০৯ জন টিকা নিয়েছেন। প্রথম দিন টিকা নিয়েছিলেন ৩১ হাজার ১৬০ জন।

দ্বিতীয় দিনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তা, মন্ত্রী, এমপিসহ জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, সরকারি কর্মকর্তারা টিকা নিয়েছেন।বিএনপি নেতারাও টিকা নিতে শুরু করেছেন। গতকাল টিকা নিয়েছেন দলটির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তিনি ভালো অনুভব করছেন। বিশ্বব্যাপী মহামারি চলছে। প্রতিষেধক হিসেবে টিকা নেওয়া প্রয়োজন। তাই টিকা নিয়েছি।

খোকনও সবাইকে টিকা নেওয়ার আহ্বান জানান। এদিকে টিকা নেওয়ার জন্য সুরক্ষা ওয়েবসাইটে গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ৫ লাখ ১২ হাজার ৫ জন নিবন্ধন করেছেন। আর গতকাল পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন ৭৮ হাজার ২৩৬ জন। আগামী ৭ মার্চ পর্যন্ত প্রথম মাসের টিকাদান চলবে।জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রোগব্যাধি কোনো রাজনৈতিক বিষয় নয়, এটি স্বাস্থ্যগত বিষয়। এ নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়। বিরোধী দলগুলোর নেতারা টিকা নিতে শুরু করেছেন। এটি ভালো উদ্যোগ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে, টিকাদানের প্রথম দিনে সারাদেশে ২৩ হাজার ৮৫৭ জন পুরুষ এবং ৭ হাজার ৩০৩ জন নারী টিকা নেন। প্রথম দিন ২১ জনের শরীরে মৃদু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছিল। গতকাল সারাদেশে যারা টিকা নিয়েছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ৩৫ হাজার ৮৪৩ জন এবং নারী ১০ হাজার ৬৬৬ জন। টিকাগ্রহণকারী ৯২ জনের শরীরে মৃদু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস শাখা জানিয়েছে, রাজধানীর ৪৬ প্রতিষ্ঠানে গতকাল টিকা নিয়েছেন ৭ হাজার ১৭৮ জন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ৫ হাজার ৭১ জন। ঢাকায় টিকা গ্রহণকারীদের মধ্যে পুরুষ ৫ হাজার ২০১ জন এবং নারী ১ হাজার ৯৭৭ জন। ঢাকা জেলাসহ ঢাকা বিভাগের ১৩ জেলায় ৫ হাজার ৬৪৪ জন টিকা নিয়েছেন। আগের এ সংখ্যা ছিল ৪ হাজার ২৪৩ জন। ময়মনসিংহ বিভাগের চার জেলায় ২ হাজার ৩৯৪ জন টিকা নিয়েছেন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৬৯৩ জন। চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলায় ১০ হাজার ৪৮০ জন টিকা নিয়েছেন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ৬ হাজার ৪৪৩ জন। রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় টিকা নিয়েছেন ৫ হাজার ৬৪২ জন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৭৫৭ জন। রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় টিকা নিয়েছেন ৫ হাজার ৫০৩ জন। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৯১২ জন। খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় টিকা নিয়েছেন ৪ হাজার ১৭০ জন। আগের দিন টিকা নেন ৩ হাজার ২৩৩ জন। বরিশাল বিভাগের ৬ জেলায় টিকা নিয়েছেন ১ হাজার ৫৪৪ জন। আগের দিন টিকা নেন ১ হাজার ৪১২ জন। সবশেষ সিলেট বিভাগের ৪ জেলায় টিকা নিয়েছেন ৩ হাজার ৯৫৪ জন। আগের দিন টিকা নেন ২ হাজার ৩৯৬ জন।

বয়সসীমা শিথিলঃ

এখন থেকে ৪০ বছর ও তার চেয়ে বেশি বয়সী সব নাগরিক টিকা গ্রহণের সুযোগ পাবেন। জনসাধারণের আগ্রহ বাড়াতে নিবন্ধনের বয়সসীমা শিথিল করেছে সরকার। এর আগে পেশাভিত্তিক বিশেষ শ্রেণির মানুষের বাইরে ৫৫ বছরের বেশি বয়সী নাগরিক টিকা নেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন।

গতকাল মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টিকার জন্য নিবন্ধনের বয়সসীমা শিথিলের অনুশাসন দেন। বৈঠক শেষে সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, সোমবার থেকে বলে দেওয়া হয়েছে ৪০ বছরের বেশি বয়স হলে টিকা দেওয়া হবে। এটি এখন থেকেই কার্যকর হবে।

No comments

-->