শিরোনামঃ

কালিগঞ্জে ভূমি দস্যু"" হলো অধিকারী"" কতৃক চলাচলের রাস্তা বন্ধ জবর দখলের অভিযোগ।

 কালিগঞ্জে ভূমি দস্যু"" হলো অধিকারী"" কতৃক চলাচলের রাস্তা বন্ধ জবর দখলের অভিযোগ। 


বি এম বাবলুর রহমান সাতক্ষীরা প্রতিনিধি


কালিগঞ্জ কাকশিয়ালীতে ভূমি দস্যু হলো অধিকারী গং কর্তৃক চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে স্থাপনা নির্মাণের নীল নকশা করেছেন, ৩০-৪০টি পরিবারকে অবরুদ্ধ করার অপচেষ্টার অভিযোগে আদালতে মামলা।



 ঘটনাটি ঘটেছে সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলায় বাসটার্মিনাল বিপরীতে (কাকশিয়ালী)গ্রামে, জানা গেছে বাদাম বিক্রিতা থেকে রাতারাতি অবৈধ  কালোবাজারি ব্যাবসা করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে ধরা কে সরাজ্ঞান করে নানা অপকর্ম করে চলেছে ""  শ্রী হলো অধিকারী গং, "" কোন কিছু তোয়াক্কা না করে কোনো প্রকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে  স্থাপনা নির্মাণের কাজ শুরু করায় সকল পরিকল্পনা সম্পন্ন করেছেন এই ভূমি দস্যু "" শ্রী হলো অধিকারী গং"" উপজেলার কাকশিয়ালী গ্রামের ৩০-৪০টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়ার সম্ভবনায় অভিযোগ উঠেছে।প্রায় ৭০ বছরের চলাচলের রাস্তা দখল করে প্রবেশের পথ আটকে স্হপনা নির্মাণ কাজ শুরু করায় পায়তারায় ইট বালু সিমেন্ট এনে  মাটি খুঁড়ে নির্মাণ কাজ শুরু করার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বলে বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত সাতক্ষীরায়, এ্যাড, আশরাফুজ্জামান বাদী হয়ে ফৌ: কা: বি: ১৪৭ ধারায়  জনসার্থে  একটি মামলা দাখিল করেছেন। 


কোর্টে মামলার সূত্রে মতে:- সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার কাকশিয়ালী মৃত্যু জয়নুল আবেদীন (মাষ্টার)রেল পুত্র এ্যাড, আশরাফুজ্জামান বাদী হয়ে একই গ্রামের মৃত সুধীর অধিকারীর পুত্র হলো অধিকারী তার পুত্র কাশিনাথ অধিকারী শ্রী জলো অধিকারী তার পুত্র বিশ্বনাথ অধিকারী,শ্রী হলো অধিকারী স্ত্রী কাঞ্চন অধিকারী,ও শ্রী জলো অধিকারী রং স্ত্রী প্রতিমা বালা দের কে বিবাদী করে গত ইং ১লা ফেব্রুয়ারী মামলা দাখিল করেন, মামলার বাদী মামলায় বর্ণনা করেছেন জেলা সাতক্ষীরা, থানা কালিগঞ্জ,মৌজার:- কাকশিয়ালী জে এল নং ৪১ খতিয়ানে ২৪৪ ,দাগ নং ৩ জমির      পরিমাণ.৪৪ একর জমির পরস্পর ক্রমে মালিক থাকেন সোহরাব আলী সরদার সোহরাব আলী সরদার ১ম পক্ষের পূর্বাধিকারী পিতামহ জিনিতুল্যা গাজী, এনাজল্যা গাজী,কেরামতুল্যা, শাহাদাত গাজী, রমজান গাজী গণের জাতপাত তথা পথের ব্যবহারের জন্য গত ইং ৭-৯-১৯৬৮ সালে অত্র  মৌজার  আর এস এ ২৪৪ খতিয়ানের ৩  দাগের ১.১/৪ শতক সম্পতি অ রেজিঃ এওয়াজ বিনিময় পত্রের মাধ্যমে উক্ত ৩ দাগের ১- ১/৪ শতক সম্পতি ১ম পক্ষের পূর্বাধিকারীগনকে প্রদান করেনন। সাবেক ১৯দাগের আর এসব  খতিয়ান নং ১৬৮ হাল ১৬ দাগের মালিক সুধীর চন্দ্র অধিকারী ১মপক্ষের পূর্বাধিকারীগনের নির্মিত রাস্তা দ্বারা যাতয়াত করিতে এবং তার বাড়িড় সীমানা চিহ্নিত করিয়া পাকা স্হপনা নির্মান তথা পাকা বসত ঘর নির্মান  করেন এবং পরবর্তীতে তার উত্তরাধিকারীগন উক্ত সীমানা বহাল রাখিয়া বসবাস করিতেছেন।


সোহরাব হোসেন সরদার পরবর্তীতে তার স্বত্বদখলীয় অন্যান্য সম্পত্তি জনৈক সুরাত আলীর নিকট বিক্রয় করিলে তিনি ও তার পুত্র গন পথের ব্যাবহ্ত জমি বাদ রাখিয়া বিল্ডিং নির্মাণ করেন, বর্ণিত রাস্তাটি কালিগঞ্জ- সাতক্ষীরা মহাসড়কের পূর্ব পার্শ্বে সড়ক ও জনপথের একোয়ারকৃত ৭০ ফুট দৈর্ঘ্য সহ রেকর্ডীয় ৪০ফুট মোট ১১০ফুট দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট এবং ২০ ফুট প্রস্থ বিশিষ্ট, উক্ত পথ দিয়ে ১ম পক্ষ সহ সর্বসাধারণ যাতয়াত করে। রাস্তার পূর্ব দিকে শেষ প্রান্তে একটি বরফ মিল।


১৮০ ফুট দৈর্ঘ্য ও২০ফুট প্রস্ত রাস্তা দিয়ে সূদীর্ঘ ৫২ বছরের অধিককাল যাবত ব্যাবহৃত হইয়া আসিতেছে , বাদি ও স্বাক্ষীরা গত ৩১শে জানুয়ারী রাস্তাটি সংস্কার করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং রাস্তা সংস্কারের জন্য ইট, রাবিশ বলি ফেরাতে থাকেন সে সময় বিবাদী গন ও তাদের অজ্ঞাত নামা সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা  কাজে বাধা প্রদান করেন এবং বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধামকি প্রদর্শন করে বলেন নিজেদের সীমানা সরাইয়া  রাস্তায় ব্যাবহৃত জমি জবরদখল করিয়া পাকা স্হপনা নির্মান করিবো বলিয়া ৬২ বছরের পুরাতন রাস্তা বন্ধ করিয়া ৩০-৪০টি পরিবারের চলাচলের বাঁধা গ্রস্ত করিবো। বিজ্ঞ আদালতে মামলা দাখিলের পর শুনানি শেষে সকল বিবাদী পক্ষকে আরজি বর্ণিত জমিতে প্রবেশ বারিত করেছেন এবং সকল বিবাদী পক্ষকে বিজ্ঞ আদালতে হাজির হয়ে কারণ দর্শানোর আদেশ প্রদান করেছেন বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত সাতক্ষীরা।


এ বিষয়ে  শ্রী কালী পদ,কার্তীক, কৃষ্ণ চক্রবর্তী, নজরুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান ওরফে মনি,আ: জলিল,জি এম এবাদুল্লাহ,আ: গফুর সরদার, সবুর সরদার, আবুবক্কর গাজী বলেন আমারা এখান থেকে প্রায় ৬০-৭০ বছর যাতয়াত করছি কিন্তু এখন এই ভূমি দস্যু রা  পথটি জবর দখল করার চেষ্টা করছে, আমরা এখন চরম বিপাকে আছি।জনস্বার্থে মামলার বাদী বলেন আমি শুধু আমার জন্য নয় জনসাধারণের স্বার্থে মামলা করেছি উল্লেখ জমির কাগজপত্র অনুযায়ী ও মানবিক অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাবো ইনশাল্লাহ ।


বিষয়টি নিয়ে উল্লেখ মামলার ২নং  ২য় পক্ষ শ্রী জলো অধিকারীর কাছে  মুঠোফোন জানতে চাইলে তিনি মামলার বিষয়ে টি নিশ্চিত করে  জানান  ঐ পথদিয়ে দ্বীর্ঘদিন ওরা(বাদি পক্ষ)। চলাফেরা করে কিন্তূ ঐ পথ টি আমাদের রেকর্ড কৃত জমি। কোর্টে মামলা হয়েছে আমরা জবাব দিবো। স্হানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হোসেন ছোট মামলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন ওখান থেকে জনস্বার্থে অনেক পুরাতন রাস্তা অনেক পরিবার যাতয়াত করে,  বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

No comments

-->