শিরোনামঃ

মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার! সাপাহারে অবৈধভাবে লাইসেন্স ছাড়াই চলছে ২২ টি স’মিল

মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার! সাপাহারে অবৈধভাবে লাইসেন্স ছাড়াই চলছে ২২ টি  স’মিল।।



নয়ন বাবু, সাপাহার (নওগাঁ):


 নওগাঁর সাপাহারে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে লাইসেন্স বিহীন স’মিল। উপজেলায় বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছে এই ধরণের অবৈধ স’মিল গুলি। যার ফলে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশের উপর ব্যাপক ভাবে ক্ষতির প্রভাব পড়ছে।স’মিলে কাঠ জোগান দিতে গিয়ে অনেক সময় উজাড় হচ্ছে বন বিভাগের সরকারি গাছ। যার কারনে মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। 

অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, উপজেলায় সদর সহ বিভিন্ন এলাকায় যত্রতত্র ভাবে- এমনকি প্রধান সড়কের কোল ঘেঁসে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে বসানো হয়েছে মোট ২২ টি কাঠ ফাঁড়ার স’মিল। তার মধ্যে একটি স’মিলেরও নেই বৈধ কোন কাগজপত্র। শুধুমাত্র লাইসেন্সের আবেদন করেই বিনা লাইসেন্সে চালানো হচ্ছে এলাকার এই স’মিলগুলি। এছাড়াও প্রধান সড়কের পাশে কাঠের গুঁড়াগুলি ফেলে রাখার ফলে জনদূর্ভোগ চরমে উঠেছে। শুধু তাই নয়, খড়ি কিনতে বা নামাতে আসা গাড়ীগুলো রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকার ফলে যানবহন চলাচলে চরম বিঘ্ন ঘটছে বলে জানান এলাকাবাসীরা।সকাল ৬টা থেকে সন্ধা ৬টা পর্যন্ত স’মিল পরিচালনা করার নিয়ম থাকলেও কেউ কেউ রাতের আঁধারে কাঠ ফাঁড়ছেন বলে অভিযোগ করছে সচেতন মহল।

বিষয়টি নিয়ে উপজেলা বন কর্মকর্তা আব্দুল বারী'র সাথে কথা হলে তিনি জানান, উপজেলাতে মোট ২২টি স’মিল আছে । যার মধ্যে ১৫ থেকে ১৭ টির নামে মামলা চলমান রয়েছে। বাঁকী যে কয়টি রয়েছে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা সাপেক্ষে তাদের স’মিল সিলগালা করার জন্য প্রস্তুতি চলছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কল্যাণ চৌধুরী বলেন, আমরা অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিভিন্ন সময় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে থাকি  তবে তাদের বিষয়ে আইনী প্রক্রিয়ায় ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও ইউএনও কল্যাণ চৌধুরী বলেন।

No comments

-->