নতুন প্রকাশিতঃ

দিনাজপুর ফুলবাড়ীতে কবরস্থানের উপর আবাসন নির্মাণের বিরুদ্ধে নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ

দিনাজপুর ফুলবাড়ীতে কবরস্থানের উপর আবাসন নির্মাণের বিরুদ্ধে নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ

রেজওয়ান আলী দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি-

দিনাজপুর ফুলবাড়ীতে কবরস্থানের উপর আবাসন নির্মাণের বিরুদ্ধে নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ দ্বায়ের করেছেন এলাকাবাসী।জানা যায়, দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউপির পাঠকপাড়া গ্রামে কবরস্থানের জায়গার উপর আবাসন নির্মাণে জনগণের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন। উপজেলা শিবনগর ইউপির পাঠকপাড়া গ্রামের মরহুম আকবর আলী সরকারের পুত্র মোঃ আনোয়ারুল হক সরকার মানিক লিখিত অভিযোগে বলেন, ফুলবাড়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি গত ০২/০২/২০২১ইং তারিখে পাঠকপাড়া গ্রামের খতিয়ান নং সিএস ২,৩,৪,৫,৬, ৭,৮ দাগ নং-১১৪,রকম- কবরস্থান,মুসলমান সাধারণের ব্যবহারের যোগ্য জমির পরিমাণ.৭৫ শতাংশ। সেই জমিতে আবাসন প্রকল্প করার লক্ষ্যে পরিদর্শন ও প্রকাশে আবাসন প্রকল্প গড়ে তোলা হবে। 

নিম্ন তফশীল বর্ণিত সম্পত্তিতে স্মৃতি বিজড়িত বাবা-দাদার কবরস্থান রয়েছে। আবাসন প্রকল্প করা হলে তা বিলুপ্ত হবে। এতে এলাকার মুসলমান জনসাধারণের মনোকষ্ট হবে। উক্ত সম্পত্তিতে পরিষ্কারভাবে রেকর্ডে রয়েছে কবরস্থান,ব্রিটিশ,পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ আমলে মুসলমান জনসাধারণ সেখানে কবরস্থান হিসেবে লাশ দাফন করে আসছেন। অথচ পাঠকপাড়া মৌজার জে.এল নং-১১২,সিএস নং-২,৩,৪, ৫,৬,৭,৮/ এস.এ-১৩,১৪,১৫,১৬, ১৭,খতিয়ানের ৮০৩ দাগে ৬.০৭ একর জমিতে আবাসন প্রকল্প রয়েছে।

ঐ খতিয়ানের ২৩৫ দাগে ৩.৪৭ একর জমিতে অবৈধভাবে পাঠকপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য  প্রদীপ কুমার, পিতা- মৃত নিরব চন্দ্র দাস,পুকুর করে হাঁস,মুরীগর ফার্ম স্থাপন করেছে। প্রতি বছর সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এককভাবে করে খাচ্ছেন। অথচ সেই সরকারি খাস জমিতে আবাসন প্রকল্প করছে না স্থানীয় প্রশাসন। এলাকাবাসী আব্দুল বাতেন মুক্তার হোসেন বলেন, এখানে বাপ দাদার ২শত বছরের কবরস্থান রয়েছে। কবরস্থান ধ্বংস করে কোনভাবে আবাসন প্রকল্প করতে  দেওয়া হবেনা। 

গত১০/০২/২০২১ ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আনোয়ারুল হক সরকার মানিক লিখিতভাবে অভিযোগ করেন। কাগজপত্রে এই জমি তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি। এ বিষয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রিয়াজ উদ্দিন এর সাথে কথা বললে তিনি জানান,তদন্ত করে সেখানে যদি কবরস্থান থাকে তা বাদ  দেওয়া হবে। আবাসন প্রকল্প স্থাপনে এখনো কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এলাকার ৩ গ্রামের বাসিন্দারা বিষয়টি তদন্ত স্বাপেক্ষে কবরস্থানে আবাসন প্রকল্প না করার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনায় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করার জোর দাবি জানান।

No comments

-->