শিরোনামঃ

অধিনায়কের দাদাগিরিতেই দল ছাড়ছেন -অলরাউন্ডার

অধিনায়কের দাদাগিরিতেই দল ছাড়ছেন -অলরাউন্ডার 

অনলাইন ডেক্সঃ মাঠের খেলা শুরুর আগেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে গেল ভারতের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতে। রোববার শুরু হয়েছে ভারতের ঘরোয়া এই টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। তার আগেরদিন অর্থাৎ শনিবার এই টুর্নামেন্ট থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন বারোদা দলের সহ-অধিনায়ক দীপক হুদা।নিজ দলের অধিনায়ক ক্রুনাল পান্ডিয়ার বিপক্ষে গুরুতর এক অভিযোগ এনে জৈব সুরক্ষা বলয় থেকে বেরিয়ে গেছেন বারোদার ব্যাটিং অলরাউন্ডার ও সহ অধিনায়ক দীপক। তার দাবি, দলের মধ্যে নিজেকে সর্বেসর্বা বানিয়ে রেখেছেন অধিনায়ক ক্রুনাল। 

এছাড়া নিয়মিতই গালিগালাজ করে থাকেন দলের খেলোয়াড়দের।এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করে বারোদা ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের কাছে এক ইমেইল করেছেন দীপক। যেখানে তিনি ক্রুনালের ব্যবহারকে দলের মধ্যে ‘দাদাগিরি’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। যা সইতে না পেরে দল ছেড়ে গেছেন দীপক। এর ফলে এখন বেশ বিপদেই পড়েছে বারোদা দল। কেননা দীপক ছিলেন দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য।

বারোদা ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনকে দেয়া ইমেইলে দীপক লিখেছেন, ‘আমি বারোদা ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের হয়ে গত ১১ বছর ধরে ক্রিকেট খেলছি। বর্তমানে সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতেও সুযোগ পেয়েছি। এ মুহূর্তে আমি খুবই হতাশ, বিষণ্ন এবং চাপের মধ্যে আছি।’

তিনি আরও যোগ করেছেন, ‘গত বেশ কয়েকদিন ধরে দলের অধিনায়ক জনাব ক্রুনাল পান্ডিয়া আমার বিরুদ্ধে খুবই বাজে ভাষা ব্যবহার করছে এবং সতীর্থদের সামনে আমাকে গালাগালি করেছেন। নিজের দাদাগিরি দেখিয়ে আমাকে অনুশীলন থেকেও থামিয়ে দিয়েছে। আমি খুবই দুঃখ পেয়েছি। এ অবস্থায় আমি খেলতে পারব না। কারণ, অধিনায়ক সুযোগ পেলেই আমাকে খোঁচা দিচ্ছেন এবং অনুশীলনে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছেন।’

বারোদার হয়ে এখনও পর্যন্ত ৪৬টি প্রথম শ্রেণি ও ১২৩টি কুড়ি ওভারের ম্যাচ খেলেছেন দীপক। এবারের সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফিতেও সবগুলো ম্যাচ খেলার কথা ছিল তার। কিন্তু অধিনায়কের দুর্ব্যবহারের শিকার হয়ে নিজ থেকেই সরে গেছেন টুর্নামেন্ট থেকে।

রোববার ম্যাচের আগে দীপকের এ অভিযোগকে আমলে নেননি ক্রুনাল। আর ম্যাচে দেখিয়েছেন পারফরম্যান্সের জাদু। উত্তরখণ্ডের বিপক্ষে বারোদার ৫ রানের জয়ের ম্যাচে ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল ক্রুনাল। প্রথমে ব্যাট হাতে ৪২ বলে খেলেছেন ৭৬ রানের ইনিংস। পরে বল হাতে ৩৩ রান খরচায় নিয়েছেন ২টি উইকেট।

No comments

-->