নতুন প্রকাশিতঃ

চকরিয়া বদরখালী-মহেশখালী সড়কে চালিত সিএনজি গুলো যেন মরণ ফাঁদ

চকরিয়া বদরখালী-মহেশখালী সড়কে চালিত সিএনজি গুলো যেন মরণ ফাঁদ

মোঃ ইউসুফ রুবেলঃ কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বদরখালী ব্রীজ থেকে মহেশখালীর মাতারবাড়ী, কালারমার ছড়া ও গোরক ঘাটা রোড়ে, চলমান যাত্রীবাহী সিএনজি অটোবাইক গুলো যেন এক মরণ ফাঁদ।

সরেজমিনে দেখা যায়, চকরিয়া ও মহেশখালী সিমান্তবর্তী বদরখালী ব্রীজের পূর্ব পাশ থেকে যাত্রী নিয়ে মহেশখালী দ্বীপের মাতারবাড়ী, কালারমার ছড়া, শাপলাপুর ও গোরকঘাটা রোড়ে প্রতিদিন ১৫০-২০০ টি গাড়ি আসা যাওয়া করে। এসব সিএনজি গাড়িতে এলপিজি তরল গ্যাস/ অক্সিজেন গ্যাস ব্যবহারের নিয়ম থাকলেও বেশিরভাগ সিএনজি অটোবাইকে ব্যাবহার করছে বাসাবাড়িতে রান্নার কাজে ব্যবহৃত জ্বালানী গ্যাস। এই গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহারে মারাত্মক ঝুঁকি রয়েছে বলে জানান বিশেষজ্ঞরা। ২২ জানুয়ারী মহশখালীর মাতারবাড়ীতে বেলুন ফুলানোর গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মাতারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে একজন মাদ্রাসা ছাত্র সহ ৩ জন নিহত এবং ৯ জন আহতের ঘটনা ঘটেছে।আহতদের অবস্থা মারাত্মক হবার কারণে মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

২২ জানুয়ারি (শুক্রবার) ১০ টা ৩৮ মিনিটে মাতারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ গ্যাস বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।উল্লেখ্য যে,শুক্রবার থেকে দুই দিন ব্যাপী মাতারবাড়ী ইসলামিয়া আজিজিয়া কাছেমুল উলূম মাদ্রাসার বার্ষিক সভার প্রথম দিন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মাহফিলের উৎসবমুখর মেলার পরিবেশে হাট বাজার বসে মাতারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে।মাহফিল চলমান স্কুলের মাঠে সিলিন্ডার থেকে গ্যাসের বেলুন ফুলিয়ে শিশুদের কাছে বিক্রি করছিল এক বেলুন বিক্রেতা।নিহত মাদ্রাসা ছাত্রের নাম: আহা খান (১২) সে মাতারবাড়ীর দক্ষিণ মিয়াজীর পাড়ার জাহাঙ্গীর আলমের পুত্র এবং এরশাদুর রহমান (১০) স্থানীয় বলির পাড়ার আজিজুর রহমানের পুত্র ও জসিম উদ্দীন (২০) চকরিয়ার হারবাং এলাকার বাসিন্দা বলে জানা যায়।আহত ব্যক্তিরা হল - মোঃ নুরী,তুহিন,জয়নাল,নুরী,জিহাদ,মারুফ,আক্কাস,রাহাত,এরশাদসহ আরো কয়েকজন।আহতদের মধ্যে ০৭ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।বাকি দুজনের অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ণ ইউনিট হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন।

ঘটনার পরপরই মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই, এএসপি জাহিদুল ইসলাম, ফায়ার সার্ভিসের অফিসার, স্থানীয় চেয়ারম্যান সহ জনপ্রতিনিধিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।রান্নার কাজে ব্যবহৃত গ্যাস সিএনজিতে ব্যবহারকারী, বেশিরভাগ ড্রাইভার এই গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহারে ঝুঁকি রয়েছে স্বীকার করে তা দ্রুত পরিবর্তনের কথা জানান।

এদিকে বদরখালীতে এলপিজি তরল গ্যাস সাপ্লাইকারী পারভেজ এন্ড তারেক অটো গ্যাস ফিলিং স্টেশনের কর্ণধার মোঃ পারভেজ বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে সিএনজি ড্রাইভার ও মালিকদের বারবার সতর্ক করছি এবং আমরা বিনা মুল্যে কনভার্সেশন করে দিচ্ছি। এতকিছুর পরেও তারা এ বিষয়ে কর্ণপাত করছে না। তিনি এ বিষয়ে প্রশাসনের নজরদারি বাড়ানোর অনুরোধ জানান।

অন্যথায় মাতারবাড়ির মতো সিএনজির গ্যাস সিলিন্ডার বাস্ট হয়ে আরও মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটার আশংকা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় জনসাধারণ।

No comments

-->