নতুন প্রকাশিতঃ

ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় নৌকার প্রার্থী মালেক সহ বিজয়ী হলেন যারা

ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় নৌকার প্রার্থী মালেক সহ বিজয়ী হলেন যারা

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উৎসব মূখর পরিবেশের মধ্যে দিয়ে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। শীত আর ঘন কুয়াশাকে উপক্ষো করে ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়েছেন ভোটররা। কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সম্পন্ন হয়েছে নির্বাচন। পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডেই ব্যাপক হারে নারী এবং পুরুষ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে হাজির হয়েছেন। সুশৃংখলা ভাবে তারা ভোট দিয়েছেন।আইন শৃংখলার বাহিনীর উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো। কেউ যেন ভোট কেন্দ্রে বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে না পারে সে কারনে আইন শৃংখলা বাহিনীর টহল জোরদার ছিল। সেই সাথে পৌর এলাকা জুড়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়।

নির্বাচনে বিপুল ভোটে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, ভবানীগঞ্জ পৌরসভা আ’লীগের সভাপতি মেয়র আব্দুল মালেক মন্ডল বিজয়ী হয়েছে। নৌকা প্রতীকে ৭ হাজার ৩ শত ১৬ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে দ্বিতীয় বারের মতো নির্বাচিত হন তিনি।তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী এস.এম. মামুনুর রশিদ জগ প্রতীকে ২ হাজার ৭শত ৫৭ ভোট। অপরদিকে বিএনপির প্রার্থী সাবেক ময়ের আব্দুর রাজ্জাক প্রামানিক ধানের শীষ প্রতিকে পেয়েছেন ১ হাজার ৮২ ভোট এবং স্বতন্ত্র আরেক প্রার্থী নারিকেল গাছ প্রতীকে পেয়েছেন ১৭ ভোট।

অন্যদিকে ভবানীগঞ্জ পৌরসভার তিনটি ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে জয়লাভ করেছেন যারা ১,২ এবং ৩ নং ওয়ার্ডে রোনা বিবি অটোরিক্সা প্রতীকে পেয়েছেন ৯৬৯ ভোট। ৪,৫ এবং ৬ নং ওয়ার্ডে চশমা প্রতীকে শাহানারা খাতুন পেয়েছেন ১৬৫ ভোট এবং ৭,৮ এবং ৯ নং ওয়ার্ডে চশমা প্রতীকে আনোয়ারা বিবি ২১৪৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়াও সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে ১ নং ওয়ার্ডে পাঞ্জাবী প্রতীকে ৭৩২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ২ নং ওয়ার্ডে সেলিম রেজা পাঞ্জাবী প্রতীকে ৬২৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন , ৩ নং ওয়ার্ডে আহাদ আলী প্রামানিক পাঞ্জাবী প্রতীকে ৪৮৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৪ নং ওয়ার্ডে দোলাহার হোসেন উটপাখি প্রতীকে ৪১৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৫ নং ওয়ার্ডে হাসান আলী পানির বোতল প্রতীকে ৭৭৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৬ নং ওয়ার্ডে আব্দুল হান্নান ডালিম প্রতীকে ৫৮৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৭ নং ওয়ার্ডে ফয়েজ উদ্দীন মন্ডল উটপাখি প্রতীকে ৫৮০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, ৮ নং ওয়ার্ডে আব্দুল মজিদ উটপাখি প্রতীকে ৬৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন এবং ৯ নং ওয়ার্ডে আলমগীর হোসেন উটপাখি প্রতীকে ৪৮৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

সেই সাথে পৌরসভার ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে পলিনা খাতুন চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ৯৬৪ ভোট, জবা প্রতীকে নারগিস বিবি পেয়েছেন ৭৫৯ ভোট, আনারস প্রতীকে আক্তারুন বিবি পেয়েছেন ৫১৬ ভোট এবং বলপেন প্রতীকে বিউটি খাতুন পেয়েছেন ২৫৯ ভোট। ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডে বলপেন প্রতীকে ছামেনা বেগম পেয়েছেন ১১২৯ ভোট, আনারস প্রতীকে হিরা খাতুন পেয়েছেন ৪৯৮ ভোট, অটোরিক্সা প্রতীকে ফাইমা বেগম পেয়েছেন ১৪২ ভোট এবং ৭, ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে আনারস প্রতীকে রাবেয়া বেগম পেয়েছেন ৭৮১ ভোট, জবা ফুল প্রতীকে জহুরা বেগম পেয়েছেন ৬৫৩ ভোট এবং অটোরিক্সা প্রতীকে জরিনা বিবি পেয়েছেন ২২২ ভোট।

সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১ নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে সদও উদ্দীন মৃধা পেয়েছেন ৪৬৫ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে আফজাল হোসেন পেয়েছেন ২২ ভোট, ২নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে ইসমাইল হোসেন পেয়েছেন ৫২১ ভোট, ৩ নং ওয়ার্ডে পানির বোতল প্রতীকে মামুনুর রশিদ পেয়েছেন ২৯৬ ভোট, ডালিম প্রতীকে আবু সাইদ পেয়েছেন ২৬২ ভোট এবং উটপাখি প্রতীকে আইনুল হক পেয়েছেন ২৪৮ ভোট, ৪ নং ওয়ার্ডে পাঞ্জাবী প্রতীকে জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ৩৯৪ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে মুন্টু পেয়েছেন ২৪৬ ভোট, ৫নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে আশরাফুল ইসলাম পেয়েছেন ২৫২ ভোট, ৬নং ওয়ার্ডে উটপাখি প্রতীকে মাইনুল ইসলাম পেয়েছেন ৩০৯ ভোট, পাঞ্জাবী প্রতীকে আনিছুর রহমান পেয়েছেন ২১২ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে আব্দুর রহিম পেয়েছেন ২০৬ ভোট, ৭নং ওয়ার্ডে পানির বোতল প্রতীকে আবু বাক্কার সিদ্দিক পেয়েছেন ৩৯৫ ভোট, ডালিম প্রতীকে জান বক্স পেয়েছেন ৩২৮ ভোট এবং পাঞ্জাবী প্রতীকে মতিউর রহমান পেয়েছেন ২৮ ভোট, ৮নং ওয়ার্ডে টেবিল ল্যাম্প প্রতীকে জিল্লুর রহমান পেয়েছেন ৪৬৩ ভোট, ডালিম প্রতীকে আমজাদ হোসেন পেয়েছেন ৮৩ ভোট এবং পাঞ্জাবী প্রতীকে এরশাদুল ইসলাম পেয়েছেন ২৫ ভোট, ৯নং ওয়ার্ডে পাঞ্জাবী প্রতীকে শহিদুল ইসলাম পেয়েছেন ৩৮০ ভোট, ডালিম প্রতীকে আমানুতুল্লাহ পেয়েছেন ৩৭০ ভোট এবং পানির বোতল প্রতীকে ওমর আলী মোল্লা পেয়েছেন ১০৯ ভোট। ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় এবছর মোট ভোট পড়েছে ১১ হাজর ২ শত ৮৯।

No comments

-->