নতুন প্রকাশিতঃ

বারে বারে বাঘের হানা সত্ত্বেও পেটের টানে সুন্দর বনের নদী খরখালীতে কাকড়া ধরতে যান ঝরখালীর বাসিন্ধারা।

বারে বারে বাঘের হানা সত্ত্বেও পেটের টানে সুন্দর বনের নদী খরখালীতে কাকড়া ধরতে যান ঝরখালীর বাসিন্ধারা।

মনোয়ার ইমাম,ভারত,কলকাতা শহরের,প্রতিনিধিঃ  জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতি দিনের ন্যায় আজ চলেছে সুন্দর বন এর খাড়িতে কাঁকড়া শিকার করতে। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার অন্তর্গত বাসন্তী,গোসবাঞ, ক্যানিং ও কুলতলী এবং জয়নগর এবং ছোট মোল্লা খালির বিস্তৃত এলাকার হাজার হাজার মানুষ কর্ম ক্ষেত্র সুন্দর বন এর চোরাস্রোত নদী ও নদীর মোহনায়। এবং গভীর সুন্দর বন এলাকার ছোট ছোট নদী নালা।কেউ আসে কাঁকড়া শিকার করতে।কেউ আসে মধূ ভাঙতে, কেউ আসে মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার নিয়ে মাছ ধরতে। প্রতি বছর বহু মানুষ শিকার করতে এসে বাঘের মুখে, কেউকে টেনে নিয়ে যায় কুমির। আবার কারো মৃত্যু হয়েছে সাপের কামড়ে। কিন্তু এত কিছুর পরও পেটের দায়ে যেতে হয় গভীর সুন্দর বন।কেউ ফিরে আসে।কেউ ফেরে না। জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতি দিনের ন্যায় যেতে হয় শিকারিদের। কখন ও জলদস্যুদের হাতে বন্দী ও মৃত্যু হয় এই সমস্ত মানুষ এর। তেমনি ভাবে আজ চলেছে গভীর সুন্দর বন এলাকায় মাজ ধরতে।।

No comments

-->