নতুন প্রকাশিতঃ

সৈয়দপুরে প্রতিবেশীদের সীমানা ঘেঁষে গর্ত করার অভিযোগ

 সৈয়দপুরে প্রতিবেশীদের সীমানা ঘেঁষে গর্ত করার অভিযোগ

সৈয়দপুর প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর সৈয়দপুরে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিবেশীর বাড়ির সীমানা ঘেঁষে গভীরভাবে গর্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে যে কোন সময় ঘর ধসে পড়ার আশঙ্কায় দিনাতিপাত করছেন প্রতিবেশীরা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের হরিয়াপাড়ায়। এদিকে বিষয়টি নিয়ে এলাকার ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যান বার বার শালিস করেও কোন প্রতিকার করতে না পারায় ভুক্তভোগীরা চরম বিপাকে পড়েছেন।

ভুক্তভোগী আবু তাহেরের অভিযোগ, প্রতিবেশী হোসেন আলীর ছেলে ফরতাজ মানিক খুবই বেপরোয়া ধরনের মানুষ। সে কোন আইন বা নিয়ম নীতির ধার ধারেনা। ময়-মুরুব্বী, মেম্বার-চেয়ারম্যানকেও তোয়াক্কা করেনা। গায়ের জোড়ে যা ইচ্ছা তাই করে। সম্প্রতি আমার বাড়ির সামনে (উঠানে) সীমানা প্রাচীর করা নিয়ে সে পায়ে পাড়া দিয়ে ঝগড়া বাধায়। কিন্তু আমি নিয়ম অনুযায়ী সীমানা থেকে দূরত্ব রেখে প্রায় দুই ফিট ছেড়ে প্রাচীর নির্মাণ করেছি। তারপরও ফরতাজ অহেতুক দাবি করে যে, আমার সীমানার মধ্যে তার জমি আছে। আর এরই সূত্র ধরে বাড়ির পেছন সাইটে আমার টিনসেড সেমিপাকা ঘরের পাশে সীমানা ঘেষে বিশালাকৃতি গর্ত করেছে। গভীর গর্ত করায় আমার শোয়ার ঘরসহ চারটি রুম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। আশঙ্কা হচ্ছে, যে কোন সময় ঘরের নিচের মাটি গর্তের মধ্যে ধ্বসে পড়ে ঘরবাড়ি ভেঙে যাবে।

আবু তাহের বলেন, ‘ফরতাজের এমন অপকর্ম সম্পর্কে এলাকার গণ্যমান্যসহ মেম্বার চেয়ারম্যানকে জানানো হলেও ফরতাজ কারও কথা শুনতে নারাজ। শালিসের জন্য বসতে বললে সে নানা অজুহাতে প্রত্যাখ্যান করে। অনেক সময় মিটিংয়ের আগে পালায়। এমন অবস্থায় দিনের পর দিন কেটে যাচ্ছে। আর আমাদের আতঙ্ক বেড়েই চলেছে। কোন সুরাহা পাচ্ছিনা। ফলে চরম দুর্ঘটনার আশঙ্কা নিয়ে বসবাস করছি।’

তার মতো আরেক প্রতিবেশী মৃত হোসেন বিহারীর স্ত্রী জমিলা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা প্রায় ১০ বছর আগে এই বাড়ি কিনে বসবাস করছি। দীর্ঘ দিনের কেউই কখনো এ বাড়ির সীমানা নিয়ে কোন প্রশ্ন তোলেনি। অথচ কিছুদিন ধরে ফরতাজ দাবি করছে যে, ইতোপূর্বে নির্ধারণ করা এ জমির সীমানা ঠিক নাই। আমার বাড়ির পাশের ক্ষেতের তিন শতক জমি নাকী বাড়ির জায়গায় পড়েছে। এ দাবি করে সে জমির আইল ঠিক করার কথা বলে বাড়ির সঙ্গে লাগোয়া পতিত মাটি কেটে ক্ষেতের মধ্যে নিয়েছে। এতে বাধা দেয়ায় প্রাণনাশসহ এখান থেকে উচ্ছেদের হুমকি দিচ্ছে সে। অথচ সে নিজে আমিন এনে পরিমাপ করে সীমানা নির্ধারণ করছেনা, আবার আমাদেরও করতে দিচ্ছেনা। এলাকাবাসী বা মেম্বারের কথাও মানছেনা। তার এই একতরফা গুয়ার্তুমির কারণে একটা সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এছাড়া, প্রায়ই বাড়ির পাশের জমিতে এসে গালিগালাজ করছে ফরতাজ। আর প্রতিবাদ করলেই মারার জন্য তেড়ে আসছে। আমার সন্তানদের আমি বিরত রাখছি বিধায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা এখনও ঘটেনি। তবে অনবরত গায়ের জোড়ে এমন অশোভন আচরণ করে চললে যে কোনো মূহুর্তে রক্ষক্ষয়ী সংঘর্ষ সৃষ্টির আশঙ্কায় রয়েছি। এ থেকে পরিত্রাণ চাই।’

তিনি বিষয়টি প্রশাসনের মাধ্যমে সমাধানের জন্য সকলের সহযোগীতা কামনা করেছেন।

এদিকে এলাকাবাসীর অনেকেই এ বিষয়ের সত্যতা স্বীকার করেছেন। এমন কি এলাকার ইউপি মেম্বার রাজাও অভিযোগ করে বলেন, ফরতাজ কারও কথা মানতে চায়না। সে কারণে সবার সঙ্গেই বিরোধের সৃষ্টি হচ্ছে।

তবে এ বিষয়ে কথা বলতে ফরতাজের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। তার মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও সে রিসিভ করেন নি।

No comments

-->