নতুন প্রকাশিতঃ

তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

 তীব্র নিন্দা  ও প্রতিবাদ ।



দেশ বাংলা ডেস্ক:

কতিপয় ব্যক্তি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জননেতা আলহাজ্ব মোঃ মাইনুল হোসেন খান নিখিল ভাইয়ের বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন মনগড়া কথা নিজস্ব ফেইসবুক পেইজ ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে লিখে প্রপাগণ্ডা ছড়াচ্ছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে নিখিল ভাইকে খুব কাছ থেকে দেখেছি। তিনি একজন নিরঅহংকার , ধর্মভীরু মানুষ। যার কোন উচ্চভিলাষী স্বপ্ন নেই, নেই কোন বিলাসি জীবন-যাপনের অভ্যাস। সাদামাটা জীবন-যাপন যার পছন্দ। যার কাছে প্রতিদিন  শত শত গরীব-দুঃখী মানুষ ভীড় করে। তিনি চেষ্টা করেন তার সামর্থ্য অনুযায়ী সবাইকে সহযোগিতা করার । আমার দেখা অনেক যুবলীগের  কর্মীর বড় ধরনের চিকিৎসার খরচ বহন করেছেন। অনেক সাধারণ মানুষেরও চিকিৎসার খরচ বহন করেছেন। নিখিল ভাইয়ের মরহুম পিতাও দলের দুঃসময়ে অনেক নেতাকর্মীর পাশে দাঁড়িয়েছেন।, যা মতলবে সর্বজন স্বীকৃত। অথচ একদল  কুচক্রীমহল নিখিল ভাইয়ের বড় ছেলে ছাত্র নেতা  নাবিল-কে  নিয়েও মিথ্যা, বানোয়াট কথা ছড়াচ্ছে যাহা খুবই দুঃখজনক ও নিন্দনীয়। একজন মানুষ সম্পর্কে কিছু লিখতে হলে তার মতামতের প্রয়োজন কিন্তু একতরফাভাবে লিখে কুৎসা রটাচ্ছে যা সম্পূর্ণ অন্যায় ও বে-আইনি। নিখিল ভাই যুবলীগের রাজনীতিতে তৃনমূল থেকে ঢাকা মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক, সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির দায়িত্ব সফলতার সাথে পালন করেছেন বলেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে  কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সম্পাদকের দায়িত্ব দিয়েছেন। যুবলীগের চেয়ারম্যন শেখ ফজলে শামস্ পরশ ও সাধারণ  সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের  নেতৃত্বে যুবলীগ যখন একের পর এক সুনাম অর্জন করেছেন , মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে যুবলীগের ভূঁয়সী প্রসংশা করেছেন ঠিক তখনই দলের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা কিছু কুলাঙ্গার যুবলীগকে নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। যে সমস্ত ব্যক্তি যারা সংগঠনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে, কোন ব্যক্তিকে নিয়ে রাজনৈতিকভাবে, সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা চালায় যা ঘৃণাভরে প্রত্যাখান করি। ঐ সমস্ত কুলাঙ্গার   গোষ্ঠীকে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি এবং এই সমস্ত মিথ্যা-বানোয়াট ভিত্তিহীন সংবাদের রংপুর মহানগর যুবলীগের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করছি।

No comments

-->