শিরোনামঃ

ডিমলায় অসহায় সামসুলের মানবিক আবেদন

 ডিমলায় অসহায় সামসুলের মানবিক আবেদন

 নীলফামারী প্রতিনিধি: সামসুল হক(৩৪)।জীবনযুদ্ধে তিনি যেন পরাজিত সৈনিক।কেননা,তিনি ভারি কাজ করতে পারেনা।তার পুঁজি না থাকায় তিনি পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ ব্যবসা।

বর্তমানে তিনি পাচঁ-সাতশত টাকা মূলধন নিয়ে,পুরাতন পায়ে চালিত ভ্যানগাড়িতে গ্রামে-গ্রামে শাক-সবজি,ঝালমুড়ি ইত্যাদি বিক্রি করেন।অপরদিকে,সামসুলের স্ত্রীও অন্যের বাড়ীতে ঝি-য়ের কাজ করেন।করোনা পরিস্থিতিতে পরিবারটি মানবতার জীবন-যাপন করছে।

তিনি নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের তিস্তাপাড়ে বাসিন্দার।তিনি দীর্ঘদিন যাবত তিস্তানদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের(বেড়িবাঁধ)ধারে স্ত্রীসহ দুই শিশু সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছেন।পরিবার নিয়ে কোনদিন আহারে কিংবা অর্ধাহারে দিন কাটে।কিন্তু,সারাদিন কাজের ক্লান্তি শেষে স্ব-পরিবারে রাত্রিযাপন করার মত তাদের কোন চালা(ঘর)নেই! সম্প্রতি,রেড ক্রিসেন্ট এর সহায়তায় একটি তাবু জোটে সামসুলের পরিবারে।

তাবু'র ঘর বিষয়ে সামসুলের স্ত্রী বলেন,"তীব্রশীত উপেক্ষা করে তাবুর ভিতর ছোট শিশু নিয়ে কোন মত রাত্রিযাপন করছি,পরবর্তীতে ঝড়-শিলাবৃষ্টি ও বজ্রপাত নিয়ে চিন্তা হয়।"

সামসুল হক জানায়,তার দৈনিক গড় আয় ১৭০-২০০ টাকার মত।তিনি মনে করেন,তার ক্ষুদ্র ব্যবসায় পু্ঁজিবৃদ্ধি হলে হয়ত তার দুঃক্ষের অবসান ঘটবে।

উত্তরের দীপশিখা সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকরা বলেন, সামছুল এর এই করুণ অবস্থায় তাকে সাহায্য করার জন্য আপনারা এগিয়ে আসুন। আমাদের মাধ্যমে সহযোগিতা করুন।

No comments

-->