নতুন প্রকাশিতঃ

চারঘাটে জনপ্রিয় হচ্ছে বাড়ির আঙ্গিনায় শীতকালীন সবজির বাগান

 চারঘাটে জনপ্রিয় হচ্ছে বাড়ির আঙ্গিনায় শীতকালীন সবজির বাগান


রাজশাহী প্রতিনিধি


রাজশাহীর চারঘাটে জনপ্রিয় হচ্ছে বাড়ির আঙ্গিনায় পড়ে থাকা জমিতে মৌসুমি সবজির চাষ। চলতি বর্ষায় অতি বর্ষণ ও করোনা প্রার্দুভাবে সবজির দাম আকষ্মিক বৃদ্ধি পাওয়ায় বাড়ির আঙ্গিনায় পড়ে থাকা এই সব পতিত জমিতে মৌসুমী সবজি চাষে উদ্ধুদ্ধো হচ্ছেন উপজেলা বিভিন্ন এলাকার মানুসজন।


সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার থানাপাড়া, বালিয়াডাঙ্গা ও ঝিকরা, বড়বড়িয়া, চক কাপাশিয়ার প্রায় প্রতিটি বাড়ির আঙ্গিনায় বাড়ির মালিকরা মৌসুমী সবজির চাষ করছেন। স্থান ও জমির উর্বরতাভেদে সবজির চাষ করছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সবজি চাষীরা। উল্লেখযোগ্য সবজির মধ্যে সিম, লাউ, মিষ্টিকুমড়া, পুই শাক, চালকুমড়া, শশা, বরবটি ইত্যাদি দেখা যায়।


উপজেলার থানাপাড়া গ্রামে শাহবুদ্দীন টোকন বলেন, আমি চাকুরীসূত্রে দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর বিদেশে ছিলাম। করোনাভাইরাস শুরু হওয়ার পূর্বে দেশে এসেছি কিন্তু আর কাজের জন্য দেশের বাইরে যাব না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। চলতি বছরে অতি বর্ষনে উপজেলার বেশিরভাগই সবজির আবাদ নষ্ট হয়ে যায় এবং চাষাবাদ ব্যহত হয়। ফলে বাজার থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় সবজি চড়া দামে কিনতে হচ্ছে।


এইসময় আমি সিদ্ধান্ত নেয় যে আমার বাড়ি আঙ্গিনায় পড়ে থাকা জমিতে আমি মৌসুমি সবজির চাষ করবো, যাতে করে আমার পরিবারের চাহিদা মেটানোর পর অতিরিক্ত সবজি বাজারে বিক্রয় করতে পারি। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বাড়ির আঙ্গিনায় ৫ কাঠা জমির উপর সিমের চাষ করি। পতিত জমি হওয়ায় জমিটি খুব উর্বর এবং চাষাবাদ খরচ আনুপাতিক হারে কমে সিমের বাগানটি তৈরি করি। বাগানে ফুল ও সিম ধরতে শুরু করেছে। পরিবারের চাহিদা মেটানোর পরে অন্ততপক্ষে ৫০ হাজার টাকা মুনাফা হবে বলে তিনি জানান। একই কথা বলেন উপজেলা চক কাপাশিয়া গ্রামের সবজি চাষী স্বপন।


এপ্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ লুৎফুন নাহার বলেন আমরা ইতিমধ্যে ৬টি ইউনিয়নের ১ শত ৯২ জনকে কালিকাপুর মডেলের সবজি বাগানের আওতায় বিনামূল্যে ৮ প্রকার সবজির বীজ ও প্রত্যেককে বাড়ির আঙ্গিনায় সবজির জন্য মাচা ও বেড়া দেয়ার জন্য ১ হাজার ৯ শত ৩৫ টাকা করে কৃষি প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী উপ-পরিদর্শক কৃষি কর্মকর্তারা মাঠে গিয়ে পরার্মশ মোতাবেক কৃষক সংগঠকের মাধ্যমে বাড়ির আঙ্গিনায় পড়ে থাকা পতিত জমির মালিকদের ও শীতকালীন সবজি চাষে উদ্বুদ্ধো করছে উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর।

No comments

-->