নতুন প্রকাশিতঃ

নীলফামারীতে ঘর পাচ্ছেন ৩১৯ অসহায় পরিবার

 নীলফামারীতে ঘর পাচ্ছেন ৩১৯ অসহায় পরিবার


স্টাফ রিপোর্টার:

নীলফামারীতে গৃহহীনদের ঘর নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী।


মুজিববর্ষ উপলক্ষে নীলফামারীতে প্রথম পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেতে যাচ্ছে ৩১৯ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার। আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় প্রথম পর্যায়ে জেলার চারটি উপজেলার ৫ কোটি ৪৫ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ব্যয়ে খাস জমিতে সেমি আধাপাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে তাদের। এর মধ্যে নীলফামারী সদরে ৭৫টি, জলঢাকা উপজেলায় ১২০টি, কিশোরীগঞ্জ উপজেলায় ১০০টি ও সৈয়দপুর উপজেলায় ২৪টি।


বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে কিশোরগঞ্জ উপজেলার নিতাই ইউনিয়নের কাছারীপাড়ায় ঘর নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিকভাবে ভিত্তিস্থাপন করেন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী।


এসময় উপস্থিত ছিলেন কিশোরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ মো. আবুল কালাম বারী পাইলট, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোকসানা বেগম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. রবিউল ইসলাম বাবুল, শাপলা বেগম, কিশোরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল আউয়াল, উপজেলা প্রকৌশলী মজিদুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবুল হাসনাত সরকার প্রমুখ।


উল্লেখ্য, এর আগে জেলা সদরের টুপামারী ও লক্ষীচাপ, সৈয়দপুরের কামারপুকুর, জলঢাকার খারিজা গোলনায় জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।


জেলা প্রশাসক জানান, ‘আশ্রয়নের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’ এই শ্লোগানে মুজিববর্ষের মধ্যে দেশের প্রতিটি মানুষের জন্য নিরাপদ আবাসন নিশ্চিতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ ও প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধায়নে মুজিববর্ষের মধ্যে সকল গৃহহীনদের জন্য ঘর তৈরি করে দেওয়ার প্রচেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে নীলফামারীতে ৩১৯টি পরিবারের জন্য সেমি পাকা ঘর নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। দ্রুত ঘরগুলো নির্মাণ করে পরিবারগুলোকে হস্তান্তর করা হবে।


জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এস এ হায়াত জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের পুনর্বাসন করার লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০২০-২১ অর্থ বছরে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় প্রথম পর্যায়ে ৩১৯টি পরিবার ঘর পাচ্ছেন।


জেলার চারটি উপজেলার ৫ কোটি ৪৫ লাখ ৪৯ হাজার টাকা ব্যয়ে খাস জমিতে ৩১৯ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে। এক লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে পরিবার প্রতি ঘর তৈরি করে দেওয়া হবে।


এর মধ্যে সদর উপজেলার রামনগরে ৩০টি, লক্ষীচাপে ২০টি, কুন্দপুকুরে ১৫টি, টুপামারীতে ১০টি। জলঢাকা উপজেলার কৈমারী ইউনিয়নে ৩৮টি, গোলনায় ২৭টি, শৌলমারীতে ১৫টি, শিমুলবাড়ীতে ১০টি ও ধর্মপালে ১০টি। কিশোরীগঞ্জ উপজেলার নিতাই ইউনিয়নে ৬০টি ও বাহাগিলি ইউনিয়নে ৪০ টি। এবং সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর নিজবাড়ি গুচ্ছ গ্রামে ২৪টি।


এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ বলেন, বর্তমান সরকার অসহায় মানুষের সরকার। অসহায় ও দুস্থদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা করেছেন তা অতীতে কোনও সরকারের আমলে করা হয়নি। তিনি প্রত্যেক গৃহহীনের জন্য ঘর করে দিচ্ছেন, যেন কেউ গৃহহীন না থাকে। শেখ হাসিনার সরকার যতদিন ক্ষমতায় থাকবেন অসহায়-দুস্থ মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

No comments

-->