নতুন প্রকাশিতঃ

নীলফামারীতে ও ডোমার উপজেলায় ইউএসএস এর সহযোগিতায় ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ।।

 নীলফামারীতে ও ডোমার উপজেলায় ইউএসএস এর সহযোগিতায় ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ।।

শিরিন আক্তার আশা,স্টাফ রিপোর্টার,নীলফামারী:

"সমাজকে  নির্ধারিত সময়ে পরিবর্তন করতে  হলে যুবদের দরকার "

 তাই তো নীলফামারী  জেলা  সদর উপজেলায় ২ টি এবং ডোমার উপজেলার ১৫টি মোট  ১৭টি যুব  ফোরামে  যুবরা অকান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে ন্যায় প্রতিষ্ঠা,  বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে । 

এমত অবস্থায় আজ  করোনায় বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ দলিত সম্প্রদায়, অবহেলিত জনগোষ্ঠীর    পাশে  যুবরা।


আজ রবিবার( ৪ অক্টোবর/২০২০) তারিখে  তৃতীয়  ধাপে  নীলফামারী জেলায় অগ্রগামী  যুব ফাউন্ডেশন ও স্বপ্নপুরন যুব সংগঠনের নেতৃত্বে করোনা কালীন সময়ে ক্ষতিগ্রস্থ ২৬৪ জন ব্যক্তির মাঝে খাদ্য ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। নীলফামারী সদর উপজেলার হরিবল্লভ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে  ২৬৪  টি পরিবারের মাঝে খাদ্য ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হয় 

এ সময় সেখানে  অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নীলফামারীর সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ, নীলফামারীর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এলিনা আক্তার, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক জিয়ারুল হক, হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডারস ফোরাম নীলফামারীর সভাপতি সরোয়ার হোসেন মানিক। 


এবং ডোমার উপজেলার চিলাহাটি মার্চেন্ট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ১০৬ টি পরিবারের মাঝে খাদ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হয়। 

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডোমার উপজেলার সহকারী উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা, এস, এম,হাবিব মর্তুজা, সামাজিক নিরিক্ষা কমিটির আহবায়ক আজাদুল হক প্রামানিক, সমাজ সেবক আতাউর রহমান প্রমূখ। আরও উপস্থিত ছিলেন সকল যুব সংগঠনে সদস্যরা।



 এখানে সুবিধাভোগী হল গৃহকর্মী- ৮১জন,প্রতিবন্ধী ১৪জন,হোটেল কর্মী ২১ জন,তৃতীয় লিঙ্গ১১ জন,অস্বচ্ছল ব্যাক্তি৮০ জন,দলিত সম্প্রদায়ের  ৮৯ জন,চাকুরীচ্যুত ৫১ জন সহ পরিবহন শ্রমিক ২৩ জন,


প্রতিটি পরিবারের জন্য উপহার সামগ্রী হিসেবে ১৫ কেজি চাল, ১ কেজি মসুর ডাল, ১লিটার সয়াবিন তেল, ১ কেজি লবন, ২ কেজি আটা,২টি সাবান, ১বিস্কিট, ১ প্যাকেট সেনোরা ন্যাপকিন ও ১ টি হেক্সিসল প্রদান করা হয়। 



২০১৮ সাল থেকে এই যুব সংগঠনগুলো বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছেন। 


যেমন, 

সমতা বিধানের লক্ষে চলো আওয়াজ তুলি,বাল্যবিবাহ বন্ধের পাশাপাশি নারী - পুরুষ মিলে সুন্দর একটি সমাজ গড়ি, এই করোনা কালিন সময়ে তরুনদের সচেতনতায় হতে পারে সমাজ পরিবর্তনের মুল ভূমিকা।

 

তাই এরা সরকারের বিভিন্ন কর্মকান্ডে সাথে থেকে এবং সরাসরি অংশ গ্রহন  করে, বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করে যাচ্ছে। 

যা সাধারণ মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য  প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে,বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, নারী, শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে, নারীদের ক্ষমতায়ন করতে বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা করে কাজ করে যাচ্ছে তারা।

তারে ধারাবাহিকতায় তারা এই করোনা মহামারীতে  যেখানে পুরো বিশ্ব থেমে গেছে। সেখানে দাঁড়িয়ে  তারা সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে মানুষকে সাহস দিয়ে, বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধি করে কাজ করার চেষ্টা করে। 

বিভিন্ন দোকানে মানুষ যাতে ভিড় না করে তার জন্য লিফলেট বিতরণ, দৃব্য কিনার সময় যাতে এক জন আর সমস্যা না করে তার জন্য তিন ফিট করে গোল দাগ দিয়ে দেয়, করোনা যাতে ছড়াতে না পারে সেই জন্য বাজার গুলোতে স্পেরে করা ইত্যাদি কাজ করে আসতেছে।




নীলফামারীর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এলিনা আক্তার বলেন যুবরা আগামী শক্তি। তাদের সুযোগ করে দিতে হবে। 

সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ বলেন যুবরা যাতে সমানে এগিয়ে আসে তার জন্য আমরা সবাই সহযোগিতা করে যাবো, আর পিছনে থাকার সময় নেই, তোমাদের বাদ দিয়ে দেশের উন্নয়ন করা অসম্ভব, তাই সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

No comments

-->