নতুন প্রকাশিতঃ

কাঞ্চনজঙ্ঘা চূড়ার মন মাতানো দৃশ্যে মুগ্ধ ঠাকুরগাঁওবাসী

 কাঞ্চনজঙ্ঘা চূড়ার মন মাতানো দৃশ্যে মুগ্ধ ঠাকুরগাঁওবাসী।

মোঃসোহেল রানা,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃকাঞ্চনজঙ্ঘা চূড়ার মন মাতানো দৃশ্যে মুগ্ধ ঠাকুরগাঁওবাসী। গত বছর শীতের পরিমাণ বেশী থাকায় ঠাকুরগাঁও থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখা না গেলেও এবার খালি চোখেই তা দেখা যাচ্ছে। ফলে জেলা শহরসহ বিভিন্ন উপজেলার মানুষ সুযোগ থাকলেই একটু উচু জায়গায় দাড়িয়ে মনোরম এ দৃশ্যটি উপভোগ করছে ঠাকুরগাঁওবাসী।


বৃহস্পতিবার সকালের দিকে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বুড়িরবাঁধ এলাকায় গেলে প্রকৃতিপ্রেমী অনেক মানুষকে কাঞ্চনজঙ্ঘার দৃশ্য উপভোগ করতে দেখা গেছে।


গত কয়েক বছর ভালোভাবে দেখা না গেলেও এবার খালি চোখেই দেখা যাচ্ছে হিমালয় পর্বতের কাঞ্চনজঙ্ঘা চূড়া। এমন একটি সময় ছিল যখন হিমালয় পর্বতের কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় যেতে হত। কিন্তু এখন আর যেতে হয় না। নিজ জেলা ঠাকুরগাঁও থেকেই দেখা যাচ্ছে অপরুপ এই মন মাতানো মনোমুগ্ধকর দৃশ্য।


ঠাকুরগাঁও শহরের চৌরাস্তা, বাসস্ট্যান্ড, টাংগন ব্যারেজ, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকার উচু জায়গায় গিয়ে উত্তর দিকে তাকালেই কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়া দেখা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।


জানা যায়,২০১৩ সালে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা আকচা ইউনিয়নের বুঁড়ির বাঁধ এলাকা থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা চূড়ার প্রথম ছবি ক্যামেরাবন্দী করেন প্রকৃতি প্রেমী রেজাউল হাফিজ রাহী। পরে সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করলে তা ভাইরাল হয়।


সদর উপজেলার আকচা ইউনিয়নের বুড়ির বাঁধ এলাকায় কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দা জয়নালের সঙ্গে। তিনি বলেন, শীতের শুরুর দিকে প্রতিবারেই কমবেশি এই কাঞ্চনজঙ্ঘার দৃশ্যটা দেখা যায়। তবে গতবার শীতের তীব্রতা বেশি থাকার কারণে খুব এটা দেখা না গেলেও আজ অনেকটাই পরিস্কার ভাবে দেখা গেছে।




কাঞ্চনজঙ্ঘার এই অপরুপ দৃশ্যটি দেখতে এসেছেন আরমান হোসেন। তিনি বলেন, একটা সময় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া গেলে এই দৃশ্যটি চোখে পড়তো। কিন্তু আজ সকালে দেখি আমাদের ঠাকুরগাঁও থেকেই দৃশ্যটি দেখা যাচ্ছে।


প্রকৃতিপ্রেমী ও ফটোগ্রাফার রেজাউল হাফিজ রাহী বলেন, ২০১৩ সালে বুড়িরবাঁধ এলাকায় পাখির ছবি তুলতে গিয়েছিলাম। এরপর সেখান থেকেই প্রথম কাঞ্চনজঙ্ঘার সর্বোচ্চ চূড়ার ছবিটি ক্যামেরাবন্দি করি। পরে সেটি ফেসবুক পোস্ট করার মাধ্যমেই মানুষ জেনেছে, শুধু পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া থেকে নয় ঠাকুরগাঁও থেকেও কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়া দেখা যায়। এরপর থেকেই মানুষ ঠাকুরগাঁওয়ে এসে কাঞ্চনজঙ্ঘার প্রকৃতির অপরূপ দৃশ্য উপভোগ করা শুরু করে।


ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, শুনেছিলাম শুধুমাত্র তেঁতুলিয়া থেকে ভারতের কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়া দেখা যায়। ঠাকুরগাঁওয়ে আসার পর জেনেছি ঠাকুরগাঁও শহরসহ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়া দেখা যাচ্ছে। আমি নিজেও এ দৃশ্যে উপভোগ করেছি।

No comments

-->