নতুন প্রকাশিতঃ

কাল নীলফামারীর টুপামারী ইউনিয়নের নির্বাচন

 কাল নীলফামারীর টুপামারী ইউনিয়নের নির্বাচন।।



সীমানা জটিলতায় দীর্ঘ ৯ বছর পর অবশেষে নীলফামারী সদর উপজেলার ৫নম্বর টুপামারী ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আগামীকাল বৃহস্পতিবার(২৯ অক্টোবর) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে আজ বুধবার(২৮ অক্টোবর) বিকাল ৪টায় ৯টি ভোট কেন্দ্রে ব্যালট বাক্স চলে গিয়েছে। করোনা কালিন এই ভোটগ্রহনে সামজিক দুরত্ব বজায় রেখেই অনুষ্ঠিত হবে। এ জন্য সকল প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, আনসার ও আইন শৃংখলা বাহিনীদের মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রদান করা হয়েছে।

সরেজমিন আজ বুধবার সকালে ইউনিয়নটিতে গেলে সেখানে নির্বাচনী আমেজ দেখা যায়। প্রচারের শেষ দিনেও ভোটারদের মধ্যে দেখা যায় উৎসাহ-উদ্দীপনা। নির্বাচনে রাজনৈতিক প্রার্থী দুইজন ও সতন্ত্র প্রার্থী একজন। তাদের সমর্থনরা ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ের প্রচারের কাজ শেষ করেছে। সরেজমিন দেখা যায়, পুরুষদের চেয়ে নারী ভোটারদের তৎপরতা বেশি। মনোনয়নপত্র জমা হওয়ার আগেই প্রার্থীদের পে দোয়া চেয়ে নারী সমর্থকেরা বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন।

উক্ত ইউনিয়নের দোগাছি গ্রামের গৃহিণী মুক্তা বেগম(৫০) বলেন, ভোটার অনেক আগোত হইছি। কিন্তু ভোট দিবার পারি নাই। এইবারই প্রথম ভোট দেমো। খুব আনন্দ লাগছে।

একই এলাকার কৃষক লিয়াকত আলী(৬০) বলেন, ৯ বছর পর ভোট। ভালো মানুষোক ভোট দেমো।

নির্বাচন না হওয়ায় গত ৯ বছর ধরে এ ইউনিয়নে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন মছিরত আলী শাহ ফকির। তিনি বলেন, আমারও ভালো লাগছে যে শেষ পর্যন্ত সীমানা জটিলতার অবসান হয়ে নির্বাচন হতে যাচ্ছে।

রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সুত্র জানায়, নির্বাচনী লড়াইয়ে চেয়ারম্যান পদে তিনজন, নয়টি ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য হিসেবে ৩৯জন এবং সংরতি নারী ওয়ার্ড সদস্য হিসেবে ১৭জন রয়েছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থী হিসেবে আওয়ামীলীগের শাহ আবুল কাশেম (নৌকা) ও বিএনপি’র সাইদুর রহমান মজনু (ধানের শীষ) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মছিরত আলী শাহ ফকির (চশমা) নির্বাচন করবেন।

সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রির্টানীং কর্মকর্তা আফতাব উজ্জামান জানান, টুপামারী ইউনিয়নে ২০ হাজার ৯৯৭জন ভোটার রয়েছেন। এরমধ্যে নারী ভোটার ১০ হাজার ২৩৫জন এবং ১০ হাজার ৭৬২জন পুরুষ ভোটার রয়েছেন। এরআগে ২০১১সালের ৫জুনের নির্বাচনে ভোটার ছিলেন ১৬হাজার ৫৯৮জন। তিনি জানান, মোট ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৯টি ও ভোট কক্ষ ৫৮টি। প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্বে রয়েছেন ৯জন, পুলিং অফিসার ১১৬জন। আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রের প্রতিটিতে একজন পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে আটজন সদস্য এবং চারটি সাধারণ কেন্দ্রের প্রতিটিতে একজন পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে সাতজন সদস্য ও প্রতিটি কেন্দ্রে ১৭ জন করে আনসার সদস্যের টীম কাজ করবে। তিনজন নির্বার্হী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃতে তিনটি মোবাইল টীম থাকবে মাঠে।

প্রকাশ্যে থাকছে যে, ২০১১ সালের ৫ জুন টুপামারী ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ইউনিয়নটির ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সীমানা জটিলতার কারনে দীর্ঘ ৯ বছর পর ভোট হতে যাচ্ছে। জানা যায়, সীমানা জটিলতার কারনে ভোটগ্রহন স্থগিত হওয়ার বিরুদ্ধে শাহ আবুল কাশেম উচ্চ আদালতে একটি রিট করেছিল। রিটে উচ্চ আদালত টুপামারী ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা ও ভোটগ্রহনের জন্য আদেশ দেয়।

উল্লেখ যে, গত ২৬ সেপ্টেম্বর/২০২০ ঘোষিত তফসিল অনুসারে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তালিখ ছিল ৪ অক্টোবর। এতে চেয়ারম্যান পদে ৪জন, সংরতি নারী ওয়ার্ড সদস্য পদে ১৭জন এবং সাধারণ সদস্য হিসেবে ৪২জন মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন। এরমধ্যে ৫অক্টোবর যাচাই বাছাইয়ে সাধারণ সদস্য পদে একজনের প্রার্থীতা বাতিল হওয়ায় এবং ১২অক্টোবর প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিনে দুইজন প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেন।

No comments

-->