নতুন প্রকাশিতঃ

নীলফামারী সদর থানা পুলিশের একটানা ৭২ ঘন্টার সফল অভিযানে অপহৃত ভিকটিম উদ্ধার অপহরণকারী গ্রেফতার ।

 নীলফামারী সদর থানা পুলিশের একটানা ৭২ ঘন্টার সফল অভিযানে অপহৃত ভিকটিম  উদ্ধার অপহরণকারী গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার:

গত ২৭ আগস্ট ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,জনৈক রবিউল ইসলাম নীলফামারী  থানায় অভিযোগ করেন যে তাহার মেয়ে নীলফামারী মডেল কলেজ এর একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী  মাহি(১৭)(ছদ্মনাম)কে  আসামী  সুজিত কুমারসহ অন্যান্য অপহরনকারীরা অপহরন করে নিয়ে গেছে।


উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে নীলফামারী থানার মামলা নং-০৯ তারিখ-০৪/০৯/২০২০ খ্রি:, ধারা-নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০(সংশোধনী/০৩) এর ৭/৩০ রুজু করা হয়।


নীলফামারী থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব কে এম আজমিরুজ্জামান এর দিক নির্দশনায় মলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই/ মো: নুর ইসলাম তদন্তের এক পর্যায়ে ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় জানতে পারেন মাহিকে নিয়ে অপহরনকারী কুষ্টিয়া জেলার খোকশা থানাধীন সমেসপুর নামক স্থানে অবস্থান করছে এবং  অপহরনকারী ভিকটিমকে নিয়ে কৌশলে ঘন ঘন অবস্থান পরিবর্তন করছে।


এরুপ তথ্যের ভিত্তিতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা  ১৪/০৯/২০২০ তারিখ কুষ্ঠিয়া জেলার অভিমুখে রওনা করে অপরদিকে অপহরন কারীরা ভিকটিমকে নিয়ে নওগার  উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।


তদন্তকারী কর্মকর্তা দ্রুত কুস্টিয়া জেলায় অপহরনকারীদের আশ্রয়দাতাকে পুলিশ হেফাজতে গ্রহন করে জানতে পারেন  নওগাঁ জেলার  আত্রাই থানা এলাকায় অপহরনকারীরা ভিকটিম মাহিকে নিয়ে আত্মগোপনে রয়েছে।


উক্ত তথ্যের ভিত্তি অভিযান পরিচালনাকারী দল কুস্টিয়া হইতে নওগাঁ জেলার আত্রাই থানা এলাকায় তার টিমসহ উপস্থিত হইয়া অভিযান পরিচালনা করে আত্রাই থানা পুলিশের সহায়তায় রাজশাহী জেলার বাগমারা থানার নিকটবর্তী এলাকা হইতে গত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখ একটানা ৭২ ঘন্টা অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিমকে উদ্ধার করে এবং আসামী সুজিত কুমার, পিতা-রনজিত কুমার, সাং-মিলন পল্লী, থানা ও জেলা-নীলফামারীকে গ্রেফতার করে।


প্রয়োজনীয় আইনানুগ প্রক্রিয়া অনুসরন করে ভিকটিম ও আসামীকে  নওগাঁ জেলার আত্রাই থানা হইতে নীলফামারী থানায় নিয়ে আসা হয়।


অদ্য ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখ ভিকটিম মাহির মেডিকেল পরীক্ষাসহ বিজ্ঞ আদালতে মাধ্যমে জবানবন্দি রেকর্ড সম্পন্ন করা সহ গ্রেফতারকৃত আসামীকে  বিজ্ঞ আদালতে প্রেরন  করা হয়।

No comments

-->